সফট্ওয়্যার এর প্রকারভেদ

সফট্ওয়্যার এর প্রকারভেদ, সফট্ওয়্যার কত প্রকার কি কি

সফট্ওয়্যার এর প্রকারভেদ নিয়ে আজ আলোচনা করবো। সফট্ওয়্যার হলো হার্ডওয়্যার পরিচালনার জন্য ব্যবহৃত এক ধারণের প্রোগ্রাম, যার মাধ্যমে হার্ডওয়্যাকে আগে থেকে নিদের্শ দেওয়া হয় যে, সে কখন কি কাজ করবে। সফট্ওয়্যার দুই ধরনের হয়ে থাকে সিস্টেম সফট্ওয়্যার আর প্রোগ্রাম সফট্ওয়্যার। সমস্যা সমাধানের জন্য কম্পিউটারের ভাষা ব্যবহার করে কতগুলি গাণিতিক ও যৌক্তিক আকারে নির্দেশকে যখন সারিবদ্ধ ভাবে ও সুশৃঙ্খিলরুপে লিপিব্ধ করা হয় তখন তাকে সফট্ওয়্যার বা প্রোগ্রাম বলে।

সফট্ওয়্যার কি কাকে বলে:

কোন কার্যের উদেশ্যে যখন কম্পিউটারের ভাষা ব্যবহার করে কতগুলি গাণিতিক ও যৌক্তিক আকারে নির্দেশকে যখন সারিবদ্ধ ভাবে ও সুশৃঙ্খিলরুপে লিপিব্ধ করা হয় তখন তাকে সফট্ওয়্যার বা প্রোগ্রাম বলে। কম্পিউটারকে কার্যোপযোগী করার জন্য এবং কম্পিউটার দ্বারা কেন সমস্যা সমাধনের লক্ষে সফট্ওয়্যার ব্যবহার করা হয়।

প্রোগ্রামার কি কাকে বলে:

একটি সফট্ওয়্যারের জন্য যেসব নির্দেশ লেখা হয় তাকে কম্পিউটারের ভাষায় কোড বলে। কোডের মাধ্যমে কম্পিউটারের হার্ডওয়্যারকে প্রোগ্রাম করা হয়। যারা সফট্ওয়্যাররের জন্য কোড লিখে থাকেন তাদের কে প্রাগ্রামার বলা হয় বা সফ্টওয়ার ইঞ্জিনিয়ার বলা হয় কারণ তারা প্রোগ্রাম কোড করে সফট্ওয়্যার গড়ে থাকেন।

সফট্ওয়্যার কিভাবে তৈরী করে:

সফট্ওয়্যার তৈরীর জন্য বিভিন্ন ধরণের প্রোগ্রামিং ভাষা ব্যবহার করা হয়। এদের মধ্যে জনপ্রিয় কয়েকটি প্রোগ্রামিং ভাষা হচ্ছে- ভিজ্যুয়াল বেসিক ,ডট নেট, সি, সি++, ভিজ্যুয়াল সি, সি শার্প, জাভা, পাইথন, রুবি ইত্যাদি। যে কোন সফট্ওয়্যারকে আগে কম্পিউটারের ইনইস্টল করতে হয়। তারপর প্রোগ্রামার যেকোন বিষয়ে নিয়ে সে নিজেই ব্যবহারকারীর নিদের্শমত সমস্যা সমাধানে কাজ করে থাকে।

সফটওয়্যার কত প্রকার কি কি:

সফট্ওয়্যার এর প্রকারভেদ সাধারণত কাজের ধরণের উপর ভিত্তি করে সফট্ওয়্যারকে প্রধানত দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছে। যথা-

  • সিস্টেম সফট্ওয়্যার (System Software)
  • অ্যাপ্লিকেশন সফট্ওয়্যার (Application Software)

সিস্টেম সফট্ওয়্যার (System Software):

আধুনিক সিস্টেম সফট্ওয়্যার হলো কম্পিউটারের সার্বিক কাজ পরিচালনায় নিয়োজিত বিশেষ প্রোগ্রাম সমষ্টি বা সফট্ওয়্যার। ইহা ব্যবহারকারী ও কম্পিউটারের হার্ডওয়্যারের মধ্যকার যোগসূত্র (Interface) প্রদান করে, বলা যায় কম্পিউটারের বেসিক সফট্ওয়্যার হলো সিস্টেম সফট্ওয়্যার যথা -Windows হলো সিস্টেম সফট্ওয়্যার

সিস্টেম সফট্ওয়্যারের কাজ:  

  • ডিভাইস সিস্টেম সফট্ওয়্যার কম্পিউটারের স্মৃতিতে অন্যান্য অ্যাপ্লিকেশন প্রোগ্রাম স্থাপন করতে সাহায্য করে।
  • কম্পিউটারে কিভাবে অ্যাপ্লিকেশনগুলি চলবে তা নির্ধারণ করে।
  • কম্পিউটারের বিভিন্ন সম্পদ (Resource) যেমন- ডিস্ক পরিসর ব্যবস্থাপনায় সাহয্য করে।
  • অননুমোদিত ব্যবহার কারী থেকে কম্পিউটারকে রক্ষা করে এবং সংরক্ষিত নিরাপত্তা নিশ্চিত করে।
  • কম্পিউটারের প্রতিটা হার্ডওয়্যার সংগঠন করা সিস্টেম সফট্ওয়্যারের কাজ।

অ্যাপ্লিকেশন সফট্ওয়্যার (Application Software):

ব্যবহারকারীর চাহিদা অনুযায়ী তৈরীকৃতি ব্যবহার যোগ্য সফট্ওয়্যার সমূহকে অ্যাপ্লিকেশন সফট্ওয়্যার বলে। যেমন- MS Office, Photoshop ইত্যাদি অ্যাপ্লিকেশন সফট্ওয়্যার। বাণিজ্যিক ভাবে অ্যাপ্লিকেশন সফট্ওয়্যারগুলি প্রচুর ব্যবহার করা হয়। অ্যাপ্লিকেশন সফট্ওয়্যার দুইভাবে পাওয়া যায়। যথা-

ব্যবহারকারী লিখিত প্রোগ্রাম:

সাধারনত ব্যবহারকারী নিজে তার নিজের কাজে ব্যবহারের জন্য তার কাজের উপযোগী করে গড়ে নেন বা কিছূ সমস্যা সমাধানের উদ্দেশ্যে যে অ্যাপ্লিকেশন প্রোগ্রাম তৈরী করে তাকে ব্যবহারকারী লিখিত প্রোগ্রাম বলে। এ প্রোগ্রাম ব্যবহার কারী তার নিজের প্রয়োজন মত প্রোগ্রাম সাজিয়ে নিতে পারেন।

প্যাকেজ সফট্ওয়্যার প্রোগ্রাম:

বানিজ্যিক ভাবে সফলতা লাভের জন্য বড় বড় সফট্ওয়্যার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান গুলি ক্রেতাদের চাহিদার দিকে খেয়াল রেখে অ্যাপ্লিকেশন সফট্ওয়্যার তৈরী করেন। এসব সার্বজনীন সফট্ওয়্যার গুলিকে প্যাকেজ সফট্ওয়্যার প্রোগ্রাম বলে। এগুলো একসাথে সব প্রোগ্রাম প্যাকেজ আকারে তৈরী করা হয়। যেমন- MS Office এর ভিতরে অফিসের প্রয়োজনীয় প্রতিটা সফট্ওয়্যার থাকে এছাড়াও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে তাদের প্রয়োজন মত প্যাকেজ সফট্ওয়্যার তৈরী করিয়ে থাকে।

হার্ডওয়্যার ও সফট্ওয়্যারের পার্থক্য:

১। কম্পিউটারের যাবতীয় যন্ত্রাংশকে হার্ডওয়্যার বলে। অপর দিকে কম্পিউটারের যে কোন প্রোগ্রামের সমষ্টিকে সফট্ওয়্যার বলে। যেমন- উইন্ডোজ, এম.এস অফিস ইত্যাদি।

২। হার্ডওয়্যার হলো কম্পিউটারের ফিজিক্যাল কম্পোনেন্ট। অপর দিকে সফট্ওয়্যার হলো লজিক্যাল কম্পোনেন্ট।

৩। হার্ডওয়্যার তৈরীর সময় সফট্ওয়্যার সম্পর্কে ধারণা থাকতে হয়। কিন্তু সফট্ওয়্যার তৈরীর সময় হার্ডওয়্যার সম্পর্কে ধারণা না থাকলেও চলে।

৪। হার্ডওয়্যার নষ্ট হয় কিন্তু সফট্ওয়্যার মুছে যায় কারণ তা হার্ডওয়্যারের মধ্যে দেখা যায়না।

৫। কীবোর্ড, মাউস, মনিটার, মাদাবোর্ড ইত্যাদি হলো হার্ডওয়্যার। অপর দিকে উইন্ডোজ, এম.এস অফিস, ফটোশপ ইত্যাদি হলো সফট্ওয়্যার।

সফট্ওয়্যার এর প্রকারভেদ, সফটওয়্যার কত প্রকার কি কি এ সম্পর্কে আরো কিছু জানার থাকলে বা ক্যারিয়ার গঠনের কোন বিষয়ে জানার থাকলে আমাকে কমেন্ট করতে ভূলবেন না। আমি প্রতিদিন নতুন নতুন ক্যারিয়ার টিপস্ এবং শিক্ষণীয় নতুন বিষয় নিয়ে আপনাদের জন্য নতুন নতুন আর্টিক্যাল পাবলিশ করবো।

হার্ডওয়্যার ও সফট্ওয়্যারের পার্থক্য

আরো নতুন ভিন্ন তথ্য জানুন:

Leave a Reply

DMCA.com Protection Status
error: Content is protected !!