ভালো মোবাইল চেনার উপায়। আসল মোবাইল চেনার উপায়

ভালো মোবাইল চেনার উপায় সম্পর্কে আপনি যদি একটু স্টাডি করেন তাহলে অনায়াসে ভালো মোবাইল ক্রয় করতে পারবেন। ভালো মোবাইল চেনার উপায় অনেক আছে যেগুলো আপনি জেনে দেখে ভালো কিনতে মোবাইল পারবেন। তাহলে চলুন আসল মোবাইল চেনার উপায় গুলো জেনে ফেলি।

যেকোন স্মার্টফোন আপনি অনয়াসে কিনে ফেলতে পারেন তবে এর মধ্যে কিছু পার্থক্য বা কনফিউশন থাকে যেগুলো কে বলে স্মার্টফোন এর কোয়ালিটি চেক। মোবাইল কোম্পানি সবসময় বাজারে দুই-তিন গ্রেডের মোবাইল ছাড়ে তা A Grad, B Grad, C Grad হতে পারে।

ভালো মোবাইল চেনার উপায়
ভালো মোবাইল চেনার উপায়

বেশির ভাগ মোবাইল ব্র্যান্ড প্রথম চালানের মোবাইল ফোন ভালো মানের ছাড়ে ‍যদি মোবাইলটি মার্কেট পেয়ে যায় তখন B Grad মোবাইল ফোন মার্কেটে ছাড়ে, তাই B Grad এর মোবাইল ভালো নাও হতে পারে। মনে রাখবেন মার্কেটে নতুন কোন মডেলের মোবাইল প্রথমে আসলে, প্রথমেই কিনতে হবে, তাহলে আসল ভালো কোয়ালিটির মোবাইল পাওয়া যাবে।

ভালো মোবাইল চেনার উপায় :

মোবাইল কনফিগারেশন: Mobile Configurations

ভালো মোবাইল ফোন কেনার আগে সবার আগে মোবাইলের যে বিষয়টি দেখবেন সেটি হলো মোবাইলের প্রসেসর Configurations। ভালো Processor মানেই ফোন হবে ভালো- Super Fast, গেম খেলার সময়ে বা কোন অ্যাপ চালু করার সময় ফোন হ্যাং করবেন না এবং ফটো এডিটিং হবে তাড়াতাড়ি, কাজ হবে তাড়া তাড়ি।

একটু খেয়াল করলে দেখবেন Snap Dragon 600 Series Processor থাকে মাঝারি Range এর ফোনে, কিন্তু সবচেয়ে ভালো হলো কোয়ালকম Snap Dragon 820 Or 820 Series Processor। আইফোনের ক্ষেত্রে ৬৪ বিট, এ ৯ চিপ হলো বেস্ট যা রয়েছে আইফোন সিক্সে। আপনি নেটে খোঁজ করলে অনেক মোবাইল কনফিগারেশন দেওয়ার সাইট পাবেন সেখান থেকে বর্তমানের ভালো মোবাইল কনফিগারেশনটি বিস্তারিত জেনে নিতে পারেন।

জেনারেশন সাপোটের্ড মোবাইল: Generation Supported Mobile

আপনি দেখবেন মোবাইলে বর্তমানে কোন জেনারেশন চলছে যেমন- 3G/4G/5G ইত্যাদি হতে পারে। আপনার জেনারেশন সাপোর্ট করে এমন মোবাইল ফোন কেনাটাই আপনার জন্য ভালো হবে। কারণ জেনারেশন সাপোর্ট না করলে মোবাইল কোনার পর আপনাকে অনেক সমস্যায় পড়াতে হবে। দেশে বর্তমানে 3G/4G/ সাপোর্ট করছে।

মোবাইল র‌্যাম কনফিগারেশন: Mobile Ram Configurations

প্রসেসরের সাথে সাথে আপনাকে আপনার মোবাইলের র‌্যাম কনফিগারেশন সম্পর্কে পূর্ণ ধারণা নিয়ে মোবাইল ক্রয় করতে হবে। কারণ প্রসেসর যদি হাই হয় কিন্তু র‌্যাম সাইজ যদি কম হয় তাহলে আপনার মোবাইলটি বিভিন্ন সমস্যা করতে পারে। বিভিন্ন অ্যাপ, ক্যামেরা, ভিডিও গেম, ডাউনলোড, ইন্টারনেট ইত্যাদি ধীর গতিতে কাজ করবে। যা অতি বিরক্তিকর হবে। বাজারের সাধারণত নরমার মোবাইলে কোয়াডকোর প্রোসেসর আর 2 জিবি র‌্যামের মোবাইল পাওয়া যায়। র‌্যামটি আপনি বেশি নেওয়ার চেষ্ট করবেন যেমন- 4 জিবি-8 জিবি এর উপর।

ডিসপ্লে টাচ কনফিগারেশন: Display Touch Configuration

বর্তমানে বাজারে বিভিন্ন মানের ডিসপ্লে টাচও এন্ড্রয়েড মোবাইল পওয়া যায় যেমন- Sandwage, Lollipop, Mosmelo, kitkat Version ইত্যাদি। তাবে আপনি নতুন ভার্সনটা নেওয়ার চেষ্টা করবেন। আর চেষ্টা করবেন emulated Display ফোন কিনতে। যা ঘরের বাইরে গেলে রোদে দাঁড়ালেও মোবাইলের লিখা পরিষ্কার স্ক্রিনে দেখা যাবে। Quad HD 2560X1440 Pixels এর ফোনগুলির দাম অনেক বেশি। মাঝারি রেঞ্জের ফোন কিনলে রেজিলিউশন যেন অন্ততপক্ষে 1280X720 Pixels হয় সে দিকে লক্ষ রাখতে হবে।

মোবাইল স্টোরেজ: Mobile Storage 

আপনার মোবাইল স্টোরেজ দেখতে হবে কেমন। কখনো Expendable Storage  নেই এমন ফোন কিনবেন না। কারণ যখন কেউ নতুন স্মার্ট মোবাইল কিনে তখন প্রথম প্রথম প্রচুর পরিমাণে অ্যাপ ডাউনলোড সেটআপ দিয়ে থাকে ফলে এর জন্য অনেকটা স্টোরেজ স্পেস লাগে। আপনি যদি প্রয়োজন মনে করেন তাহলে মাইক্রো-এসডি কার্ডও ব্যবহার করতে পারেন, সেই অপশনটি খোলা রাখবেন। অন্ততপক্ষে ১৬ জিবি ইন্টারনাল ফোন মেমরি আছে এমন ফোনই কিনবেন।

ক্যামেরা, ফ্রন্ট ক্যামেরা, ফ্লাস লাইট: Camera, Font Camera, Flash Light

Camera, Font Camera, Flash Light নেই এমন ফোন কিনবেন না। কারণ বর্তমান ফোরজি টেকনোলজির যুগ, এগুলো আপনার লাগবেই, Camera, Font Camera, Flash Light বর্তমানে মাঝারি Range ফোনে Standard 13 Megapixels Rear Camera থাকে। iPhone 6+, Galaxy S7, Galaxy S7 age, HTC 10 এর ক্যামেরা খুবই ভালো। আরও Best LG 5। এতে দুই রকমের Rear Camera ‍Setting রয়েছে। একটি সাধারণ এবং অন্যটি Width Engle স্যুটের জন্য।

ব্যাটারী পারফামেন্স : Battery Perfumes 

মোবাইলের সবচেয়ে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো ব্যাটারি লাইফ। ব্যাটারী পারফামেন্স  একবার ফুলচার্জ দেওয়ার পর যে সমস্ত 4G মোবাইলে টানা ৮ ঘণ্টা নেট সার্ফিং দেয়। Battery Perfumes Special ফোনই সবচেয়ে ভালো। আপনি লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারী যুক্ত ফোন কিনতে পারেন। ব্যাটারি Battery Life Time Total 3000mha হলেই ভালো। Midrange Mobile Phone 2500mh এর কম Battery life Mobile Phone না কেনাই ভালো।

মোবাইল নেটওয়ার্কি একসেস ডিভাইস: Mobile Networking Access Device

Wi-Fi, Bluetooth বর্তমানের সব স্মার্টফোনেই থাকে। সুতরাং যে সকল মোবাইলে Bluetooth 3.0 রয়েছে সেই মোবাইল গুলোর মধ্যে নেওয়ার কথা চিন্তা করবেন। কারণ Bluetooth 3.0 মোবাইলটি ভার্সন থাকলে Smart Watch any Share type Networking সহ বিভিন্ন ডিভাইস সহজে Connect করা যায়। এছাড়াও GPS রয়েছে কি-না তাও দেখতে হবে। যাতে ফোন হারিয়ে গেলে ট্র্যাক করতে সুবিধা হয়। আর যদি Magneto meter Sensor থাকে তবে স্মার্টফোন Compass এর  কাজ করবে। যা ভালো মোবাইল চেনার উপায় গুলোর বৈশিষ্ট।

সাউন্ড সিস্টেম: Sound Systems

বর্তমানের স্মার্টফোনের অন্যতম লেটেস্ট ফিচার Dolby Automats Sound System –এটা Lenovo এর সাম্প্রতিক সংস্করণ, Lenovo এর প্রায় সব ফোনেই এই ফিচার থাকে। যারা মোবাইল ফোনে ভিডিও দেখেন, গান শোনেন বা সিনেমা দেখেন, তারা Dolby Speaker রয়েছে এমন Phone Set কিনলে ভালো সুবিধা ভোগ করবেন।

স্মার্টফোন এর নতুন ফিচার: New Feature in Smartphone

বর্তমানে স্মার্টফোন এর নতুন ফিচার গুলোর মধ্যে হলো Mobile Finger Print Security, Sutter proof Security, Scratch proof Screen, Gorilla Glass, IPS Display, Water proof, NFC Tag এগুলা রয়েছে। আপনার ফোনের বাজেট যত বেশি হবে আপনি মোবাইলের ফিচারগুলো ততবেশি এবং আপডেট ভার্সন পাবেন। আপনি যদি  বাজেট ম্যানেজ করতে পারেন তবে স্মার্টফোন এর নতুন ফিচার সুবিধা রয়েছে এমন ফোনই কিনবেন।

IME দেখে আসল মোবাইল চেনার উপায়:

আপনার মোবাইলে টাইপ করুন *#06# চাপুন সাথে সাথে ১৫ ডিজিটের International Mobile Identification Number আসবে। তারপর আপনি বিভিন্ন ভাবে কোডটি পরিক্ষা করে ভালো মোবাইল সনাক্ত করতে পারবেন।

প্রথমত: এখন IME এর ৭ম এবং ৮ম নাম্বারটি ভালোভাবে দেখুন। যদি ৭ম নম্বরে এবং এবং ৮ম নম্বরে ০২ বা ২০ হয় সে ক্ষেত্রে মোবাইল ফোন টির কোয়ালিটি খুব খারাপ, ০৮ বা ৮০ হয়ে থাকে তবে মোবাইল ফোন টির কোয়ালিটি হবে মানসম্মত, ০১ বা ১০ হলে মোবাইল ফোন টি ভালো, ০০ হলে মোবাইল ফোন প্রধান কারখানার তৈরি এবং ১৩ হলে মোবাইল ফোন টি কোয়ালিটি খুবই খারাপ এবং এটি কোয়ালিটি খারপ বলে রেডিয়েশন বেশি হবে ফলে আপনার স্বাস্থ্যের জন্যও অধিক মাত্রায় ক্ষতিকর হতে হবে।

দ্বিতীয়ত: আপনি আনলাইনে বিভিন্ন IME ব্যবহার করে আসল না নকল ফোন তা সনাক্ত করতে পারেন। অথবা মোবাইল ফোন টির আসল তথ্যগুলো আপনার নিজের ভালো মোবাইল ফোন এর সাথে মিলিয়ে নিতে পারেন। নকল মোবাইল ফোন টিতে কখনো আসল মোবাইল ফোন এর মত পারফামেন্স থাকবে না।

ভিডিও দেখে IME চেক করার নিয়ম

আশা করছি উপরোক্ত বিষয় গুলো ভালো মোবাইল চেনার উপায় হিসাবে বিবেচনা করে মোবাইল ফোন কিনলে ভালো মানের কিনতে পারবেন এছাড়াও অনলাইনে মোবাইলের কনফিগারেশন পরীক্ষার করার অনেক সফ্টওয়্যার রয়েছে। গুগলে একটু খুজলেই পেয়ে যাবেন। এখানে ক্লিক করুন

Leave a Reply

error: Content is protected !!