মোবাইলের স্পিকারের সমস্যা | স্পিকার সমস্যার সমাধান

ইলেকট্রনিক্স টেকনোলজির মধ্যে আমাদের নিত্যদিনের ব্যবহার্য যত টেকনোলজি আছে তার মধ্যে মোবাইল অন্যতম। আর মোবাইলের একটা গুরুত্বপূর্ণ ডিভাইসের নাম স্পিকার, যার সাহায্যে আমরা মোবাইলের মাধ্যমে কথা শুনতে পায়। আর এই মোবাইলের স্পিকারের সমস্যা তে ভূগেনি এমন ব্যক্তি পাওয়া মুশকিল। মোবাইলের স্পিকারের সমস্যাও একটা সাধারণ সমস্যা। খুব সহজে  মোবাইলের স্পিকার সমস্যার সমাধান করা যায়। সুতরাং আজ আমরা জানবো মোবাইলের স্পিকার কি? মোবাইলের স্পিকার সমস্যার সমাধান, মোবাইলের স্পিকার পরিবর্তন করার নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত ।

মোবাইলের স্পিকার কি?

স্পিকার বলতে গেলে বলা যায় যেটা মোবাইলের একটা ডিভাইস যার মাধ্যমে আমরা কথা শুনতে পায়। মাইক্রোফোনে আমরা কথা বালি আর স্পিকারে তার শুব্দ শুনতে পায়। এজন্য মাইক্রোফোন এবং স্পিকার একে অন্যের সাথে বিশেষ ভাবে জড়িত বলা যায়।

মাইক্রোফোন যে কাজটা করে স্পিকার তার উল্টোটা করে। “মাইক্রোফোন শব্দ তরঙ্গকে বৈদ্যুতিক তরঙ্গে পরিণত করে, আর স্পিকার তার উল্টোটা করে “বৈদ্যুতিক তরঙ্গকে শব্দ তরঙ্গে পরিণত করে”। অপর প্রান্তে যখন কেউ মাইক্রোফোনে কথা বলে তখন আমরা স্পিকারে কানে আওঁয়াজ পেয়ে থাকি।

মোবাইলে স্পিকারের কাজ :

ইলেকট্রনিক্সে সব স্পিকারের একই কাজ বৈদ্যুতিক তরঙ্গকে শব্দ তরঙ্গে পরিণত করা। মোবাইলের কথা, গান, শব্দ, আউটপুট দেওয়াই স্পিকারের কাজ। আমার প্রতিদিন মোবাইলের মধ্যে থেকে যে আওঁয়াজ পাই তা স্পিকারের মাধ্যমে পেয়ে থাকি সুতরাং পরিস্কার বোঝা যায় কথা, গান, শব্দ শোনানো স্পিকারের কাজ। তবে সাধারণত বক্সে যে স্পিকার ব্যবহার করা হয়ে থাকে তা অনেক বড় হয়ে থাকে আর মোবাইলের স্পিকার খুবই ছোট হয়ে থাকে চিত্রটি খেয়াল করলে বুঝতে পারবেন।

চিত্র: মোবাইলের স্পিকার নমুনা

Mobile Speaker স্পিকারের সমস্যা

মোবাইলের স্পিকারের সমস্যা সমূহ:

  • কোন কথা শোনা যাবেনা।
  • গান অডিও ভিডিও শোনা যাবেনা।
  • আপনার কথা শুনতে পাবে কিন্তু আপনি কারো কথা শুনতে পাবেন না।
  • অনেক সময় মোবাইলের স্পিকার শর্ট থাকলে মোবাইল অন হয় না আবার মোবাইল অনেক গরম হতে থাকে।

মোবাইলের স্পিকার সমস্যার সমাধান:

মোবাইলের স্পিকারের সমস্যার সামাধান করতে হলে আপনাকে আগে দেখতে হবে আপনার মোবাইলে কয়টা স্পিকার আছে। কারণ কিছু কিছু মোবাইলে কথা শোনার জন্য একটা স্পিকার থাকে আর মাল্টিমিডিয়ার জন্য বা গান বাজঁনার জন্য অন্য একটা বড় স্পিকার থাকে। আপনি যদি দেখেন যে গান শোনা যাচ্ছে কিন্তু আপনি কথা শুনতে পাচ্ছেন না। তাহলে বুঝতে হবে আপনার মাল্টিমিডিয়া স্পিকার সমস্যা হয়েছে অর্থাৎ বড় স্পিকারের সমস্যা।

বেশি ভাগ সময় মাদারবোর্ডে কথা শোনার স্পিকারে তার সংযোগ থাকেনা, মোবাইলের বডির সাথে আঠা দিযে আটকানো থাকে, মোবাইল খুললে কথা শোনা স্পিকার আলাদা হয়ে যায়। আর মাল্টিমিডিয়া স্পিকার তার মাদারবোর্ডের সাথে যুক্ত অবস্থায় থাকে।

আপনার যদি কথা শোনা স্পিকার খারাপ থাকে তার বাজার  মূল্য ১০-১৫ টাকার মধ্যে নিবে, আর যদি মাল্টিমিডিয়া স্পিকার খারাপ হয় তাহলে ২০-৫০ টাকার মধ্যে দাম নিবে। নষ্ট স্পিকারটা খুলে বাজার নিয়ে যাবেন দিয়ে সেটার সাথে মিলিয়ে স্পিকার কিনে নিতে হবে। যদি একটু কম বেশি হয় কোন সমস্যা নেই অরিজিন্যাল না পেলে সেটা কিনে নিবেন। কারণ বেশির ভাগ মেকারেরা অরিজিন্যাল না পেলে বিকল্প কিনে লাগিয়ে দেয়। এতে তেমন কোন সমস্যা হয়না।

প্রয়োজনীয় সার্ভিসিং টুলস্ সমূহ:

  • একটা স্টার স্ক্রু ড্রাইভার।
  • একটা আয়রন বা তাতাল।
  • একটু রাং ও রজন।
  • প্রয়োজনীয় স্পিকার।

মোবাইলের স্পিকার পরিবর্তন করার নিয়ম:

প্রথম ধাপ- আপনাকে আগে বুঝে নিতে হবে কোন স্পিকার খারাপ হয়েছে বা স্পিকারের সমস্যা। কথা শোনা স্পিকার না মাল্টিমিডিয়া স্পিকার। তারপর মোবাইলটি স্ক্রু ড্রাইভার দিয়ে সাবধানতার সাথে ধিরে ধিরে খুলে ফেলতে হবে। দিয়ে দেখতে হবে আপনার মোবাইলে কয়টা স্পিকার আছে। যদি দেখেন একাট স্পিকার আছে তাহলে সেটা অতি সাবধানতার সাথে খুলে ফেলতে হবে।

দ্বিতীয় ধাপ- স্পিকারটি খোলার পর বাজারে নিয়ে যেতে হবে দিয়ে সেটা মিলিয়ে স্পিকার কিনে আনতে হবে। যদি হুবহু নাপান তবে সেই সাইজের একট স্পিকার কিনে আনতে হবে তবে তার চেয়ে কখনো বড় স্পিকার নেওয়া যাবেনা। তবে সেই সাইজের চেয়ে ছোট হলে আপনি মোবাইলের সেই স্পিকারের ফাঁকা জায়গাতে সেট করতে পারবেন। বড় হলে কিন্তু মোবাইলে সেট হবেনা।

তৃতীয় ধাপ- স্পিকারের নেগেটিভ পজেটিভ ঠিক রেখে মোবাইলে লাগিয়ে দিবেন। তারপর হাতে ধরে অতি সাবধানতার সাথে মোবাইলটির খাপ লাগিয়ে অন করে দেখতে হবে যদি ঠিক ঠাক বাজে তাহলে তা স্ক্রু দিয়ে ভালোভাবে লাগিয়ে দিলে হয়ে যাবে। মাইক্রোফোন সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন

আরো জানতে আমাদের সাথে থাকুন আর নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন। তাহলে সার্ভিসিং রিলেটেড এমন অনেক নতুন নতুন বিষয় শিখতে পারবেন। প্রয়োজনী টুলস্ গুলো একবার কিনলে আর কেনা লাগবেনা। তাই বলি কিছু টাকা দিয়ে সার্ভিসিং টুলস্ গুলো কিনে নিতে ভূলবেননা। কারণ একবার কিনলেই আমার প্রতিটা প্রোজেক্টে ব্যবহার করতে পারবেন।

Leave a Reply

DMCA.com Protection Status
error: Content is protected !!