মাইক্রোফোন কি | মোবাইলের মাইক্রোফোন সমস্যার সমাধান

মোবাইলের দুইটা ডিভাইস হলো মাইক্রোফোন ও স্পিকার। মাইক্রোফোনের কাজ শোনা আর স্পিকারের কাজ শোনানো, বলা যায় দুইটাই গুরুত্বপূর্ণডিভাইস। তাই আজকের বিষয় মোবাইলের মাইক্রোফোন। অন্য একটা আর্টিক্যালে আমি মোবাইলের স্পিকার নিয়ে আলোচনা করবো। মোবাইলের মাইক্রোফোন সমস্যা একটা ছোট সাধারণ সমস্যা, যে সমস্যার সমাধান প্রায় সবাই করতে পারে শুধু একটু বেসিক নলেজ থাকলে। মোবাইলের মাইক্রোফোন সমস্যা হলে কিভাবে বুঝবেন এবং তার সমাধান কিভাবে করবেন। আজ সে বিষয় নিয়ে আমি বিস্তারিত আলোচনা করবো।

মাইক্রোফোন কি?

মাইক্রোফোন হলো এমন একটি ডিভাইস যার মাধ্যমে শব্দ তরঙ্গকে বৈদ্যুতিক শক্তিতে রুপান্তরিত করে অবিকল সেই শব্দ উৎপন্ন করা হয়। মাইক্রোফোনের সামনে গান-বাজনা, কথা বললে বাতাসে যে শব্দ তরঙ্গ উৎপত্তি হয় তা মাইক্রোফোনের মধ্যে থাকা পাতলা ধাতব পর্দায় ধাক্কা লেগে কেপে ওঠে ফলে গৃহিত শব্দের অবিকল প্রতিরুপ বৈদ্যুতিক তরঙ্গ সৃষ্টি হয়ে সেই শব্দ স্পিকারে বেজে ওঠে। যা নেটওর্য়াকের মাধ্যমে এক মোবাইল থেকে অন্য মোবাইলে পৌঁছে যায়।

সাধারণ মাইক্রোফোন এবং মোবাইলের মাইক্রোফোনের মধ্যে তেমন কোন পার্থক্য নেই। তবে মোবাইলের মাইক্রোফোন অনেক ছোট মিনি মাইক্রোফেন হয়ে থাকে যা মোবাইলে ব্যবহার করা হয়। কিন্তু আমরা মানুষের সামনে বক্তব্য দেওয়ার সময় যে মাইক্রোফোন ব্যবহার করি তা সবাই দেখতে পায়। কিন্তু মোবাইলের মাইক্রোফোন অনেক ছোট ভালোভাবে না দেখলে বোঝা যায় না। মাইক্রোফোনে নেগেটিভ পজেটিভ প্রান্ত থাকে। লাল টা পজেটিভ এবং কালো প্রান্ত নেগেটিভ হয় মাইক্রোফোনে চিহ্ন করা থাকে, না থাকলে মিটারের সাহায্যে পরিক্ষা করে নিতে হবে। তবে বর্তমানে মোবাইলের মাইক্রোফোন দেখলেই বোঝা যায় কোনটা নেগেটিভ কোনটা পজেটিভ।

চিত্র: মোবাইলের মাইক্রোফোন নমুনা

Mobile Microphone

মোবাইলের মাইক্রোফোনের সমস্যা সমূহ:

আপনার মোবাইলের মাইক্রোফোন নষ্ট হলে সাধারণত যে যে সমস্যা হতে পারে সেগুলো হলো

  • মোবাইলে কথা বলার সময় আপনার কথা কেউ শুনতে পাবেনা। কিন্তু আপনি সবার কথা শুনতে পাবেন। এমন হলে বুঝতে হবে আপনার মোবাইলের মাইক্রোফোন নষ্ট হয়েছে।  
  • আপনি যখন মোবাইলে কথা বলবেন অপর প্রান্তের ব্যাক্তি যদি আপনার কথা ছাড়া অতিরিক্ত আওয়াজ শুনতে পায় যেমন-স্ব-স্ব-স্ব শব্দ , কটকট আওঁয়াজ ইত্যাদি বিভিন্ন শব্দ হতে পারে এমন হলে মাইক্রোফোন পরিবর্তন করলে সমস্যা ঠিক হয়ে যায়।
  • আপনি যখন মোবাইলে কথা বলেন আপনার কথা অপর প্রান্তে ব্যক্তি যদি আস্তে শুনতে পায় তাহলেও বুঝতে হবে মাইক্রোফোন সমস্যা হয়েছে। মাইক্রোফোন পরিবর্তন করলে এসমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।
  • মোবাইলের নিচের দিকে যেখানে মাইক্রোফোন থাকে ঠিক সেই জায়গাতে ছোট একটা ছিদ্র থাকে যে ছিদ্র দিয়ে আমাদের আওয়াজ মোবাইলে প্রবেশ করে অনেক সময় দেখা যায় সেই ছোট্ট ছিদ্রটি ময়লা ঢুকে বন্ধ হয়ে গেছে। তখন আমাদের আওয়াজ মাইক্রোফোনে পৌঁছায় না সেজন্য আগে সেই ছিদ্রটি ভালো ভাবে দেখে নিতে হবে।

চিত্র: মোবাইলের মাইক্রোফোনের স্থান

Mobile Microphone 2 মাইক্রোফোনের

মাইক্রোফোন পরিবর্তন করার নিয়ম:

উপরোক্ত সমস্যা গুলোর মধ্যে  যদি আপনার মোবাইলের কোন একটা সমস্যা থেকে থাকে তাহলে আপনি আপনার মোবাইলের মাইক্রোফোন পরিবর্তন করতে পারেন যার বাজার মূল্য ৮-১০ টাকা কিন্তু মোবাইল মেকারের কাছে গেলে প্রায় ১০০ টাকা নিবে তাও আবার বিভিন্ন মোবাইলে ভেদে বিভিন্ন রেট হয়। দামি মোবাইল হলে অনেক টাকা নিতে পারে।

সার্ভিসিং টুলস্ সমূহ:

  • একটা স্টার স্ক্রু ড্রাইভার।
  • একটা আয়রন বা তাতাল।
  • একটু রাং ও রজন।
  • একটা মিনি মাইক্রোফোন।

প্রথম ধাপ- অতি সাবধানতার সাথে মোবাইলটি খুলুন একটা স্টার স্ক্রু দিয়ে ধিরে ধিরে খুলে দেখুন কি ধরনের মাইক্রোফোন আছে। তার যুক্ত মাইক্রোফেন না মাদারবোর্ডের সাথে ফিক্স মাইক্রোফোন। বর্তমানে 99    % মোবাইলে তারযুক্ত মাইক্রোফোন থাকে যেটা পরিবর্তন করা খুব সহজ।

দ্বিতীয় ধাপ- এবার আপনি ভালোভাবে দেখে নিন যে আপনার মোবাইলের মাইক্রোফোন কিভাবে লাগানো আছে। কোন তারটা নেগেটিভের সাথে আছে আর কোন তারটা পজেটিভের সাথে আছে দরকার হলে খাতা কলমে মার্ক করে নিতে পারেন, উলট-পালট হলে মাইক্রোফেন কাজ করবেনা।

চিত্র: মোবাইলের মাইক্রোফোনের সংযোগ

Mobile microphone in mother board মাইক্রোফোন

ত্বতীয় ধাপ- এবার আয়রণটি হিট হতে দিন, মনে রাখবেন মোবাইলের কাজের আয়রনের মাথা চিকন হয়ে থাকে। এবার আয়রন হিট দিন যতক্ষন আয়রনের মাথায় রাং ঠেকালে না গলে যায় ততক্ষন হিট দিন। রাং ঠিকমত গলে গেলে মাইক্রোফোনের তার যেখানে ঝালাই করা আছে ঠিক সেখানে আসতে করে আয়রন টি ধরলে তার ছুটে যাবে। তারপর ঠিক একইভাবে সেখানে নতুন মাইক্রোফোনটি ঝালাই করে দিবেন। কালো তারটা নেগেটিভ আর অন্যটা পজেটিভ সংযোগে হালকা করে আয়রন দিয়ে লাগিয়ে ফেলুন।

চতুর্থ ধাপ- তারপরে আপনার মোবাইলটি যেভাবে লাগানো ছিলো ঠিক সেইভাবে আসতে আসতে লাগিয়ে ফেলুন ভূল করেও তাড়া হুড়া করতে যাবেননা কারণ আপনার তাড়াহুড়ার কারণে অন্য সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে। এইভাবে আপনার মোবাইলের মাক্রোফোনটি খুব সহজে পরিবর্তন করে নিতে পারেন। দরকার হলে আগে নষ্ট মোবাইলে প্যাকটিস করতে পারেন। তাহলে নিজের মোবাইলে কাজ করতে সহজ হবে। স্পিকার সম্পর্কে জানতে এথানে ক্লিক করুন।

আপনি যদি সার্ভিসিং কাজ শিখতে আগ্রহী হন তাহলে যেসব টুলস্ এর নাম বলেছি তা কিনে ফেলতে পারেন কারণ এসকল টুলস্ কিনতে বেশি টাকা লাগবেনা একবার কিনলেই আমার প্রতিটা প্রজেক্টে ব্যবহার করতে পারবেন। প্রতিটা কাজ প্যাকটিস করতে আপনার অনেক সহজ হবে।

Leave a Reply

DMCA.com Protection Status
error: Content is protected !!