কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত রাখার সহজ উপায় [2019]

ভাইরাস কি ?

কম্পিউটার ভাইরাস হলো একধরণের প্রোগ্রাম সফট্ওয়্যার যা তৈরী করা হয়েছে কম্পিউটারের সিস্টেম সফট্ওয়্যারের ক্ষতি করার জন্য। এটা বিভিন্ন হ্যাকার কোম্পানি তৈরী করে বিভিন্ন ভাবে তাদের টার্গেটেড কম্পিউটারে প্রবেশ করিয়ে তাদের স্বার্থ হাসিল করে থাকে। কিছু সফট্ওয়্যার আছে যেগুলো কম্পিউটারের সিস্টেমের সমস্যা সৃষ্টি করার জন্য তৈরী করা হয়। যেমন- শর্টকাট, ম্যালওয়্যার, ট্রাজেন হর্স ইত্যাদি অর্থাৎ যে সফট্ওয়্যার কম্পিউটারের সিস্টেমে প্রবেশ করে প্রোগ্রামের বিভিন্ন সমস্যা সৃষ্টি করে তাকে কম্পিউটার ভাইরাস বলে।

কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত রাখার উপায়:

ইন্টারনেট থেকে ভাইরাস :

কম্পিউটারের ভাইরাস প্রবেশের সবচেয়ে বড় মাধ্যম হলো ইন্টারনেট। কম্পিউটারে ইন্টারনেটের মাধ্যমে ভাইরাস সবচেয়ে বেশি প্রবেশ করে, এজন্য আপনার কম্পিউটারে ইন্টারনেট চালাতে হলে এন্টি-ভাইরাস ব্যবহার করতে হবে। সেটা হতে পারে ফ্রি এন্টিভাইরাস অথবা লাইসেন্স ক্রয়কৃত এন্টি-ভাইরাস। ফ্রি এন্টি-ভাইরাস গুলোর মধ্যে অ্যাভাস্ট আর পেইড হলো নর্তন, ক্যাস্পারিস্কাই ব্যবহার করতে পারেন।

প্রেনড্রইভ বা মেমোরী থেকে ভাইরাস :

আপনার কম্পিউটারে ভাইরাস প্রবেশের দ্বিতীয় রাস্তা হলো প্রেনডাইভ বা মেমোরী। প্রেনডাইভের বা মেমোরীর মাধ্যমে আপনার কম্পিউটারে ভাইরাস প্রবেশ করে। এজন্য যার-তার প্রেনড্রাইভ বা মেমোরী স্ক্যান না করে আপনার কম্পিউটারে লাগাবেন না। প্রেনডাইভ বা মেমোরী থেকে নিরাপদ থাকতে হলে ইউএসবি ডেস্ক সিকিউরিটি সফট্ওয়্যার ব্যবহার করতে পারেন। তাহলে মেমোরীতে ভাইরাস থাকলে এলার্ট দিবে। তখন ভাইরাস স্ক্যান করে ডিলিট করে দিতে পারবেন।

যেকোন শেয়ার ডিভাইস থেকে ভাইরাস :

আপনি আপনার মোবাইল বা ল্যাপটপ থেকে কোন কিছু পারা-পার করতে শেয়ারের জন্য যে ডিভাইস ব্যবহার করেন তার মাধ্যমে কম্পিউটারে ভাইরাস প্রবেশ করে। যদি আপনি কোন শেয়ার ডিভাইস যেমন-শেয়ারইট, ব্লুটুথ, ফেইম, ইত্যাদি ব্যবহার করেন তাহলে ভাইরাস আছে কি-না জেনে ব্যবহার করবেন।

পিসি টু পিসি কানেক্ট বা নেটওয়ার্কিং থেকে ভাইরাস :

আপনার পিসি যদি অন্য পিসির সাথে নেটওয়াকিং করা থাকে তাহলে অন্য পিসি ভাইরাস আক্রান্ত হলে আপনার পিসিতেও ভাইরাস আক্রান্ত হবে। অতএব, পিসি কানেক্ট করার আগে অবশ্যই ভাইরাস মুক্ত আছে কি না জেনে নিতে হবে। তার পর নেটওয়ার্কিং করতে হবে।

ওয়াইফাই থেকে ভাইরাস :

ওয়াই-ফাইয়ের মাধ্যমে মোবাইল থেকে পিসি, পিসি থেকে মোবাইলে ভাইরাস ছড়াই। অতএব, ওয়াইফাই ব্যবহার করলে আপনার পিসি বা মোবাইলে এন্ট্রিভাইরাস ব্যবহার করতে হবে।

ডাউনলোড থেকে ভাইরাস :

আপনি যখন নেট থেকে কোন কিছু ডাউনলোড করবেন তখন অবশ্যই তা জেনে শুনে করবেন। কারণ নেটে অনেক সময় দেখা যায় আপনি একটা ডাউনলোড করছেন কিন্তু ডাউন লোডের পর দেখা যাচ্ছে সেটা আপনার কাঙ্খিত সফট্ওয়্যার না ভাইরাস অথবা কম্পিউটার হ্যাং করা সফট্ওয়্যার। এজন্য এন্টিভাইরাস ব্যবহার করতে হবে।

মোবাইল থেকে ভাইরাস :

মোবাইল থেকে ভাইরাস পিসিতে চলে আসে এটা একটা কমন সমস্যা। তাই আপনার মোবাইল যদি ভাইরাস মুক্ত থাকে অথবা পিসি যদি ভাইরাস মুক্ত থাকে তাহলে ডাটা কেবল লাগতে পারেন। অথবা আগে স্ক্যান করে নিতে পারেন।

সিডি/ডিভিডি থেকে ভাইরাস :

আমার মার্কেট থেকে বিভিন্ন সিডি/ডিভিডি কিনে আমাদের কম্পিউটারে কপি করে থাকি কিন্তু আপনি জানেন কি এসব সিডি কতটা নিরাপদ। এসব সিডিতে বেশির ভাগ সময় ভাইরাস থাকে। এজন্য স্ক্যান করে নিবেন। নতুবা আপনার পিসি ভাইরাস আক্রান্ত হতে পারে।

কম্পিউটার ভাইরাস প্রতিরোধের উপায় :

আপনার কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত রাখতে হলে আপনাকে এন্ট্রিভাইরাস সফট্ওয়্যার ব্যবহার করতে হবে। যদি কিনে ব্যবহার করতে না পারেন তাহলে বিভিন্ন ফ্রি এন্ট্রিভাইরাস পাওয়া যায় সেগুলো ব্যবহার করবেন। এন্ট্রিভাইরাস সফট্ওয়্যার আপনার পিসিতে ইনস্ট্রল দেওয়া মাত্র ভাইরাস থাকলে স্ক্যান শুরু হয়ে যাবে। অনেক সময় এমনিও স্ক্যান হতে থাকে, তখন সময় দিয়ে স্ক্যান করে নিতে হবে।

পিসি ভাইরাস আক্রান্ত :

আপনার কম্পিউটার যদি আগে থেকে ভাইরাস আক্রান্ত হয় তাহলে সম্ভব হলে উইন্ডোজ দিয়ে নিবেন। তারপর একটা এন্ট্রিভাইরাস দিয়ে আপনার হার্ডডিস্ক স্ক্যান করে নিলেই আপনার কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত হয়ে যাবে। আর যদি উইন্ডোজ দেওয়া সম্ভব না হয় তাহলে ভালো একটা এন্ট্রি ভাইরাস ব্যবহার করে পুরো কম্পিউটার স্ক্যান করে ভাইরাস মুক্ত করতে হবে।

এন্টিভাইরাস শর্ট টিপস:

ইন্টারনেট ব্যবহার করলে অবশ্যই এন্টিভাইরাস ব্যবহার করতে হবে। আর আপনার কম্পিউটারে যদি মেমোরী সিডি, প্রেনড্রইভ প্রবেশ করান তাহলে ওপেন করার আগে অবশ্যই স্ক্যান করে নিতে হবে সরাসরি কোন ফাইল ওপেন করা যাবে না।

ফোল্ডার অপশন থেকে ফাইল গুলো ওপেন করতে হবে। যদি সরাসরি ওপেন করেন তাহলে ভাইরাস থাকলে সাথে সাথে আপনার পিসি অ্যাটাক করবে। আর আপনি জানেন  হয়ত শর্টকাট ভাইরাস কি তাড়াতাড়ি পিসিতে ছড়িয়ে যায়। প্রবেশ করা মাত্র আপনার সিস্টেমের ১২টা বাজিয়ে দিবে। এজন্য উপরের নিয়ম গুলো ভালো ভাবে ফলো করুন আপনার পিসি নিরাপদ থাকবে।

Leave a Reply

DMCA.com Protection Status
error: Content is protected !!