এসি মেরামত | এসির সমস্যা এবং সমাধান | ফ্রি প্রশিক্ষণ

এসি মেরামত করার জন্য সবার আগে আপনাকে এসির সমস্যা সনাক্ত করতে শিখতে হবে। কারণ আপনি যদি সমস্যা খুঁজে বের করতে না পারেন তাহলে এসি মেরামত করতে পারবেন না। সঠিক ভাবে এসি মেরামত করতে হলে অবশ্যই আপনাকে এসির সমস্যা গুলো চিহ্নিত করে কাজ শুরু করতে হবে। তাই আজ আমরা জানবো স্পিলিট টাইপ এসির কিছু কমন সমস্যা এবং সমাধানের উপায়। তাহলে চলুন কথা না বাড়িয়ে এসির সমস্যা গুলো সম্পর্কে জেনেনি।

এসির সমস্যা এবং সমাধান :

আজ আমরা এসির যে বিষয় গুলো জানবে তাহলো- এসির সমস্যা এবং সমাধান: এসির কম্প্রেসার যদি না চলে, এসি বন্ধ হওয়ার কারণ, এসি পাওয়ার সাপ্লাই পরিক্ষা, এসি দেরিতে ঠান্ডা হওয়ার কারণ- এসি দেরিতে ঠান্ডা হলে করণীয়, এসির রিমোট কাজ না করার কারণ- এসি রিমোট দ্বারা না  চলার কারণ, এসির রিমোটের সমস্যা গুলো সম্পর্কে বেসিক একটা পুরো ধারণা সহ বিস্তারিত বর্ণনা করা হলো :

এসির সমস্যা হলে করণীয় :

ইনডোর এসি সার্ভিসিং

আউটডোর এসি সার্ভিসিং

এসির কম্প্রেসার চলে না :

স্পিলিট এসির কম্প্রেসার যদি না চলে তাহলে আপনাকে প্রথম থেকে যেভাবে কাজ করতে হবে তার একটি ধারাবাহিক চিত্র নমুনা দেওয়া হয়েছে। যেভাবে আপনি একদম প্রথম থেকে কাজ শুরু করতে পারবেন। এজন্য আমরা আগে এসির সমস্যা গুলোর কারণ এবং কিভাবে কাজ শুরু করতে হবে তা জানবো।

এসি বন্ধ হওয়ার কারণ :

  • পাওয়ার সাপ্লাই সমস্যা (কারেন্ট লাইন পাচ্ছে না)।
  • ক্যাপাসিটর নষ্ট হতে পারে (এসি চালু করতে পারছে না)।
  • ওভারলোড প্রটেক্টর খারাপ হতে পারে (যার কারণে এসি চালু হচ্ছে না)।
  • ঘরের ইলেকট্রিক ওয়্যারিং কারেন্ট লুজ কানেকশন হতে পারে।
  • ফিউজ কেটে যেতে পারে চেক করতে হবে।

এসি পাওয়ার সাপ্লাই পরিক্ষা :

সবার আগে আপনাকে এসির পাওয়ার সাপ্লাই লাইন পরিক্ষা করা শুরু করতে হবে। যেভাবে করবেন তাহলে মিটারের মাধ্যমে প্রথমে পাওয়ার লাইনের কারেন্ট তারপর স্টার্টিং ক্যাপাসিটর তারপর ওভারলোড প্রটেক্টর তারপর ভালো ভাবে ইলেকট্রিক লাইনের লুজ কানেকশন আছে কি-না তারপর ফিউজ এভাবে একের পর এক পরিক্ষা করে সমস্যা খুঁজে বের করতে হবে।

এসি দেরিতে ঠান্ডা হওয়ার কারণ :

  • এসিতে অপর্যাপ্ত পরিমাণে গ্যাস রয়েছে বা কমে গিয়েছে।
  • কম্প্রেসার ঠিক মত পাম্প করতে পারছে না (কম্প্রেসর পাম্প লেস হয়েছে)।
  • এসির কন্ডেন্সার ফিংন্স এ ময়লা জমে গেছে জ্যাম হয়েছে।
  • ক্যাপাসিটর দূর্বল হতে পারে- ইভাপোরেটর মোটরের ঘূর্ণয়ণ গতি কমে গিয়েছে।
  • ঘরের তাপমাত্রা তুলনামূলক অনেক বেশি হওয়ার কারণে দেরিতে ঠান্ডা হতে পারে।
  • এসির ফিল্টারে ময়লা জমতে পারে ময়লাযুক্ত এয়ার ফিল্টার পরিস্কার করতে হবে।

এসি দেরিতে ঠান্ডা হলে :

স্পিলিট টাইপ এয়ারকান্ডিশনার দেরিতে ঠান্ডা হলে আপনাকে উপরের সমস্যা গুলে ধরে ধরাবাহিক ভাবে পরিক্ষা শুরু করতে হবে। যে সমস্যাটা পাবেন তার সমাধান করতে হবে যেমন- প্রথমে গ্যাস পরিক্ষা তারপর কম্প্রেসার পরিক্ষা তারপর কন্ডেনসার পরিক্ষা তারপর ক্যাপাসিটর পরিক্ষা তারপর ফিল্টার পরিক্ষা এভাবে কাজ করে এগিয়ে যেতে হবে তাহলে সমস্যা সনাক্ত করে সমাধান করতে পারেবন।

এসির রিমোট কাজ না করার কারণ :

  • আপনার রিমোট নষ্ট হতে পারে।
  • রিমোটের ব্যাটারী নষ্ট হতে পারে।
  • এসির রিসিভারে সমস্যা হতে পারে।
  • রিমোটের সিগন্যাল আউট L.E.D নষ্ট হতে পারে।
  • তারের ট্রান্সমিটিং সার্কটে সমস্যা হতে পারে।
  • এসিলেটর নষ্ট হতে পারে।

এসি রিমোট দ্বারা চলানো যাচ্ছে না :

স্পিলিট টাইপ এয়ারকন্ডিশনার যদি রিমোট দারা চালানো না যায় তাহলে উপরের সমস্যা গুলো ধরে স্টেপ-বাই-স্টেপ পরিক্ষা করে সমস্যা সনাক্ত করতে পারেন। যেমন- প্রথমে রিমোট পরিক্ষা তারপর ব্যাটারী তারপর এসির ‍রিমোট সিগন্যাল রিসিভার পরিক্ষা তারপর রিমোটের ভিতরের পার্টস পরিক্ষা তারপর এসির রিসিভার পরিক্ষা। এভাবে পরিক্ষা করে সমস্যা সনাক্ত করতে হবে দিয়ে সমাধান করতে হবে।

এসির রিমোটের সমস্যা :

স্পিলিট এসির রিমোট কন্ট্রোল এর ইন্ডিকেটর অস্পষ্ট হলে বা ইন্ডিকেটরে রার্নিং অবস্থায় সিগন্যাল অস্পষ্ট দেখালে এসির রিমোটের যে সমস্যা গুলো হতে পারে তার মধ্যে কমন কিছু সমস্যা হলো :

  • রিমোটের ব্যাটারী চার্জ কমে যাওয়া বা চার্জ মেয়াদ শেষ।
  • এসির রিমোটের ভিতরের সার্কিট নষ্ট হতে পারে।
  • রিমোটের সেন্সর দূরত্ব বেশি হলে সমস্যা হতে পারে।
  • হতে পারে এসির সেন্সর অনুযায়ী রিমোট নয়।

স্পিলিট এসির কম্প্রেসার চলে না :

স্পিলিট এসির কম্প্রেসার চলে না আবার এসির কম্প্রেসার শব্দ করে কিন্তু O.L.P. ট্রিপ করে এমন সমস্যা হলে যে বিষয় গুলো স্টেপ-বাই-স্টেপ পরীক্ষা করতে হবে। এসি মেরামত করতে সে বিষয় গুলো হলো নিচে পয়েন্ট আকারে দেওয়া হয়েছে :

  • সার্কিট ওয়্যারিং ভূল আছে/থাকতে পারে পরীক্ষা করতে হবে।
  • সাপ্লাই লো-ভোল্টেজ ইউনিট দেখা যেতে পারে পরীক্ষা করতে হবে।
  • এসির কম্প্রেসারের রিলে কন্টাক ছাড়ে না এমন হতে পারে।
  • রান বা রানিং ক্যাপাসিটর নষ্ট থাকতে পারে পরীক্ষা করতে হবে।
  • কম্প্রেসারর মোটরের ওয়েন্ডিং খোলা থাকতে পারে পরীক্ষা করতে হবে।
  • কম্প্রেসারের মেকানিক্যাল ফল্ট বা সমস্যা থাকতে পারে চেক করতে হবে।

স্পিলিট এসি চলে তাও ঠান্ডা হয় না :

রেফ্রিজারেন্ট অনেক কম অর্থাৎ এসির গ্যাস কমে এসেছে এজন্য ঠান্ড হয় না। রুমের ভিতরের এরিয়া এর কাভারেজের চেয়ে অতিরিক্ত বেশি বা লোড বেশি কভারেজ হতে পারে। এসির ইভাপোরেটর কয়েল জ্যাম হয়ে থাকতে পারে ভ্যাকুয়াম করতে হতে পারে। কুলিং ক্যাপাসিটি অনেক আংশে কমে এসেছে এমন হতে পারে। কন্ডেন্সার ময়লাযুক্ত হয়ে গিয়েছে ভালো ভাবে পরিস্কার করতে হবে। অনেক কম ক্ষমতা সম্পন্ন ইউনিট হতে পারে কুলিং লোড বেশি হতে পারে। গ্যাসচার্জ করার সময় পরিমিত গ্যাস চার্জ হয়নি গ্যাস পরিক্ষা করতে হবে।

স্পিলিট এসি চলার পরেও রুমে তাপমাত্রা বেশি:

এসি বন্ধ হয়ে যেতে পারে বা এসি চলে কিন্তু মোটর চলে না। ইউনিট ছোট কিন্তু কুলিং লোড বেশি। এসির কুলিং সিস্টেম এ গ্যাস না থাকতে পারে। কুলিং কয়েল অপেক্ষা কৃত ছোট হওয়ার কারণ হতে পারে। এক্সপানশন ভাল্ব অপেক্ষা কৃত ছোট হতে পারে। এগুলো একের পর এক পরিক্ষা করতে হবে দিয়ে সমস্যা খুঁজে বের করতে হবে।

নতুন স্পিলিট এসি স্থাপনের নিয়ম :

সংক্ষেপে নতুন স্পিলিট এসি স্থাপনের নিয়ম জেনে নেওয়া যাক- স্পিলিট টাইপ এসি স্থাপনের জন্য প্রথমে এসি স্থাপনের কক্ষটি ভালো ভাবে দেখে এসির ক্ষমতা নিধারণ সম্পর্কে জেনে সিদ্বান্ত নিতে হবে যে, কোন স্থানে এসি টি স্থাপনের করলে ভালো হবে। তারপর প্রথমে ইনডোর এসির এর মাপ অনুযায়ী বেস প্লেট দেওয়ালে সেটিং করতে হবে। তারপর আউটডোর এসি সেটিং করার জন্য ঘরের বাইরে স্থান নিবার্চন করতে হবে। এরপর ভালো ভাবে এসি স্থাপন এবং সেটিং করতে হবে।

এসির কপার পাইপ সেটিং :

তারপর ইনডোর আউটডোর এসি এর দূরত্ব পরিমাপ করে নির্দিষ্ট মাপের কপার পাইপ কেটে নিতে হবে। এরপর পাইপ গুলোর উপরে ইনসুলেশন পরাতে হবে। তারপর কপার পাইপের মাথা বিপরীত মুখি করে নির্দিষ্ট মাপের ফ্লায়ারিং নাট প্রবেশ করিয়ে পাইপের মাথা গুলো ফ্লায়ারিং করতে হবে। এরপর পাইপের সাথে থ্রি-কোর/ফোর-কোর ফ্লেক্সিবল তার দিয়ে রেপিং টেপের মাধ্যমে ভালো ভাবে রেপিং করতে হবে। তারপর ইনডোর ও আউটডোর এসির সাথে পাইপ ও তারের সংযোগ দিয়ে এসি স্থাপনের কাজ সমাপ্ত করতে হবে।

এসির গ্যাস পরীক্ষা করা :

নতুন এসি স্থাপনের পর গ্যাসচার্জ করে এসিতে পাওয়ার লাইন দিয়ে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে হবে। এর 15/20 মিনিট পর গেজ মিটারের মাধ্যমে গ্যাসের পরিমাণ ঠিক আছে কি-না মেপে দেখতে হবে গ্যাস ঠিক আছে কি-না। যদি দেখেন গ্যাস ঠিক আছে একটুও কমেনি তাহলে বুঝতে হবে এবার আপনার কাজ শেষ।

বিশেষ পরামর্শ :

আজ আমি এসি মেরামত বা এসির বেসিক কিছু সমস্যা নিয়ে আলোচনা করলাম। ধিরে ধিরে আরো বেশি গভির ভাবে প্রতিটা বিষয় সমস্যা তুলে ধরবো। যদি আপনাদের কমেন্ট এর মাধ্যমে সাড়া পাই। সুতরাং যারা এসি সার্ভিসিং রিপেয়ারিং শিখতে চান তারা নিচে অবশ্যই কমেন্ট করুন। আপনাদের কমেন্ট এর কারণে আমার যেমন আগ্রহ বাড়বে তেমনী আপনারও নতুন নতুন শিক্ষণীয় তথ্য পেতে থাকবেন।

বিশেষ দ্রষ্টব্য :

[বিঃ দ্রঃ এসি মেরামত বা এসির কাজ করার সময় কারেন্ট শর্ক লাগতে পারে এজন্য কখনো কারেন্ট লাইন দেওয়া অবস্থায় কাজ করতে যাবেন না। যদি কোন ভাবে আপনি ক্ষতি গ্রস্থ হন তাহলে আমি বা আমার ওয়েবসাইট এ জন্য দায়ী হবো না। ইমেকার বিডি সাইট ব্যবহারের আগে টর্মস এন্ড কান্ডিশনটি পড়ে নেওয় উচিৎ]

4 Comments

  1. রিংকু September 27, 2019
    • admin September 28, 2019
  2. ইলিয়াস September 29, 2019
    • admin October 1, 2019

Leave a Reply

DMCA.com Protection Status
error: Content is protected !!